কিভাবে ব্যবসা শুরু করব সহজ ১২ টি উপায়ে

4/5 - (4 votes)

যদি আপনিও সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৬ টা পর্যন্ত কোনো চাকরি করতে নারাজ ,এবং সেইসব মানুষ দের অপছন্দ করেন যারা কথায় কথায় বলে যে আপনার দ্বারা ব্যবসা করা সম্ভব নয় , এই জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন অনেক যোগ্যতার প্রয়োজন , আসলে ব্যাপারটি কিন্তু এরম টা নয় । ব্যবসা করার জন্য টাকার প্রয়োজন হয় , সেটা যে কোনো কাজের জন্যই সাময়িক কিছু টাকার দরকার পরে ,কিন্তু অনেকে ভাবে যে অনেক বেশি টাকার প্রয়োজন , সেরম টা কিন্তু নয় । আপনি যদি নিজের একটা ব্যবসা শুরু করতে চান কিন্তু জানেন না যে কিভাবে ব্যবসা শুরু করব , তাহলে আজকে আমাদের এই পোস্ট টি শুধু আপনার জন্য । 

কিভাবে ব্যবসা শুরু করব

আমাদের মধ্যে অনেকের মনে একটাই স্বপ্ন থাকে যে নিজের একটা ব্যবসা করার , কিন্তু আমাদের মধ্যে কিছু ভুল তথ্য থাকে যেগুলো আমাদের মিসগাইড করে থাকে , আর আমরা বুঝতে পারিনা কিভাবে ব্যবসা শুরু করব,  ফলে আমরা কোনো কাজ শুরু করতে পারিনা । নিজের ব্যবসা শুরু করার জন্য কোন কোন প্রাথমিক জিনিসের প্রয়োজন , কোন কোন স্টেপ গুলি মেনে আপনি নিজের একটা সফল ব্যবসা শুরু করতে পারবেন সেইসব আজকে আমাদের এই পোস্টে আমরা শেয়ার করবো ।

চলুন তাহলে দেখে নি আমরা কিভাবে ব্যবসা শুরু করব সহজ ১২ টি স্টেপে    

১. সবসময় নিজের আগ্রহের উপর ব্যবসা করুন

যে কোনো ব্যবসা শুরু করার আগে আপনাকে এটা অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার কোন কাজে আগ্রহ রয়েছে , আপনি কোন কাজটি করতে সবচেয়ে বেশি  পছন্দ করেন , এছাড়া আপনি কোন কাজটি পরিপূর্ণতা ও নিষ্ঠার সাথে সম্পূর্ণ করতে পারেন , এই রকম কোনো কাজ যদি থাকে আপনার জীবনে থাকে তাহলে আপনি সেটার উপর কাজ করতে পারেন এবং ব্যবসা শুরু করতে পারেন । 

আসলে নিজের আগ্রহের উপর কাজ করলে আপনি সেই কাজ করার সময়ে কোনো কিছু কেই পরোয়া করবেন না , ফলে আপনার কাজ টি ভালো হবে ।    

 

২. মার্কেট রিসার্চ করুন

আপনার আগ্রহ ও পছন্দের কাজ টি বেছে নেওয়ার পর প্রথম কাজ হলো মার্কেট রিসার্চ করা । মার্কেট রিসার্চ বলতে আপনি যে কাজটি বেছে নিয়েছেন সেটির চাহিদা কিরকম , আপনার কাজটি যদি কোনো প্রোডাক্ট সম্বন্ধীয় হয় তাহলে সেই প্রোডাক্টের বর্তমান ও ভবিষৎ চাহিদা কেমন , আপনার টার্গেট কাস্টমার কারা , সেই প্রোডাক্টের প্রতিযোগিতা অর্থাৎ কতজন ইতিমধ্যে আপনার এই একই প্রোডাক্টের উপর কাজ করছে , তাদের থেকে আপনি আলাদা কি করতে পারবেন যাতে গ্রাহক বা কাস্টমার আপনার প্রোডাক্টের উপর আকৃষ্ট হয় । এই সমস্ত ব্যাপার গুলো কিন্তু ব্যবসা করার আগে আপনাকে একটু দেখে নিতে হবে ।

 

» মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ব্যবসা করার দুর্দান্ত আইডিয়া

 

৩. ব্যবসা পরিকল্পনা বা বিজনেস প্ল্যান তৈরী করুন

যে কোনো কাজ শুরু করার আগে সেটা ব্যবসা হোক বা অন্য কিছু একটা উপযুক্ত পরিকল্পনা থাকাটা ভীষণ জরুরি , পরিকল্পনা থাকলে সেই কাজ টি করতে অনেক সুবিধা হয় , তাই আপনি যখন আপনার আগ্রহ এবং মার্কেট রিসার্চ করে নেওয়ার পর ব্যবসা শুরু করবেন তার আগে আপনার ব্যবসার জন্য একটা পরিকল্পনা বা বিজনেস প্ল্যান তৈরী করুন যেখানে স্পষ্ট ভাবে এই জিনিস গুলি উল্লেখ থাকবে 

  • ব্যবসার যাবতীয় তথ্য বা ডেসক্রিপশন 
  • আপনার ব্যবসার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস 
  • মার্কেট এনালাইসিস বা মার্কেট রিসার্চ
  • ব্যবসার কৌশল বা মার্কেটিং স্ট্রাটেজি 
  • ব্যবসার ম্যানেজমেন্ট 
  • ব্যবসার আর্থিক বিশ্লেষণ অর্থাৎ আপনার ব্যবসায় কত  পুঁজি বা বিনিয়োগের প্রয়োজন 

এইসমস্ত বিষয় গুলি নিয়ে একটা বিজনেস প্ল্যান তৈরী করুন এবং সময়ের সাথে সাথে এই বিজনে প্ল্যান টি আপডেট করতে থাকুন।

আরও পড়ুন 

» পাইকারি ব্যবসা কি ? ১০ টি পাইকারি ব্যবসার আইডিয়া

» দুর্দান্ত ১০ টি ছোট ব্যবসায়ের আইডিয়া

 

৪. ব্যবসায় হওয়া সমস্ত খরচের ডেটা বা নথি রাখা

আমাদের মধ্যে অনেকের এই অভ্যাস টি রয়েছে যে খরচ করা টাকার কোনো ডেটা বা তথ্য রাখেনা , কারণ তারা এটাকে অতটা গুরুত্বপূর্ণ মনে করেনা , আসলে কিন্তু ব্যবসার ক্ষেত্রে এই জিনিস টি অনেক বড়ো একটা ব্যাপার । বিজনেস প্ল্যান তো আপনারা বানিয়ে নিলেন কিন্তু এরপর আপনার ব্যবসার জন্য যে যে খরচ গুলি হবে সেইসব কিছুর তথ্য রাখা অতন্ত জরুরি । ব্যবসা শুরু করতে সাধারণত যে যে খরচ গুলো হয়ে থাকে 

  • ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় লাইসেন্স এর খরচ 
  • লিগাল বা আইনি খরচ 
  • বীমা বা ইন্সুরেন্স 
  • ইকুইপমেন্ট অর্থাৎ আপনার ব্যবসায় প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র 
  • ব্র্যান্ডিং ও মার্কেটিং 
  • বিজ্ঞাপন বা advertisement

এই সমস্ত খরচ গুলির হিসাব আপনাকে অবশ্যই রাখতে হবে এতে ভবিষ্যতে অডিটের সময় এবং বছরের শেষে লাভ ক্ষতির পরিমান বুঝতে কোনো সমস্যা হবে না । 

৫. একটা বিজনেস স্ট্রাকচার তৈরী করুন

যে কোনো ব্যবসার শুরু করার আগে আপনাকে ব্যবসার গঠন বা বিজনেস স্ট্রাকচার তৈরী করা অত্যন্ত জরুরি । ব্যবসা গঠন বলতে আপনি ব্যবসা একা  অর্থাৎ Proprietorship হিসেবে করতে চান , নাকি পার্টনারশিপে করতে চান , নাকি প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে করতে চান । এই বিষয় টির উপর আপনার ব্যবসার বেশ কিছু জিনিস নির্ভর করবে । তাই ব্যবসা শুরু করার আগে আপনি কিভাবে ব্যবসা শুরু করতে চান সেটা ঠিক করে নিন ।

  

৬. নিজের ব্যবসার একটা নাম রাখুন

ব্যবসার পরিকল্পনা , বিজনেস স্ট্রাকচার এইসব তৈরী করার পরে এবার আপনার ব্যবসার একটি নাম রাখুন । এবার ব্যবসার নাম যেটা ইচ্ছা সেটা আপনি রাখতেই পারেন , কিন্তু আমি বলবো আপনারা সব সময় নিজের কাজের বা নিজের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস রিলেটেড ব্যবসার নাম দেওয়ার চেষ্টা করুন , ফলে ভবিষ্যতে আপনার ব্যবসা কে একটি ব্র্যান্ড এ পরিণত করতে পারেন। 

  

» সেরা ১০ টি স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম

 

৭. লাইসেন্স ও আইনি বা লিগাল ব্যাপার গুলোর উপর নজর দেওয়া

ব্যবসার গঠন ও ব্যবসার নাম ঠিক করার পরে আপনি আপনার ব্যবসায় প্রয়োজনীয় সকল লাইসেন্স ও পার্মিট গুলি করতে হবে । তবে এর জন্য আপনাকে একটু রিসার্চ করতে হবে যে আপনার ব্যবসার গঠন ও ব্যবসার পরিকল্পনা অনুযায়ী কোন কোন লাইসেন্স ও পারমিটের প্রয়োজন ।  

 

৮. ব্যবসা করার জন্য একটা সঠিক জায়গা বেছে নিন 

লাইসেন্স ও রেজিস্ট্রেশন এবং বাকি সব কিছু হয়ে যাওয়ার পর আপনার ব্যবসার জন্য উপযুক্ত একটি জায়গা ঠিক করুন , যেটা আপনার ব্যবসার জন্য উপযুক্ত এবং লাভজনক হবে । তাই সঠিক equipment ও সঠিক জায়গা বেছে নিয়ে ব্যবসা শুরু করুন । 

 

» সেরা ১০ টি কম ইনভেস্টমেন্ট ব্যবসার আইডিয়া

 

৯. একটি একাউন্টিং সিস্টেম তৈরী করা

বিজনেস লোকেশন বা ব্যবসা করার জায়গা ঠিক করা পরে একটি হিসাবপত্র বা একাউন্টিং সিস্টেম তৈরী করুন , কারণ যে কোনো ব্যবসায় হিসাবপত্র বা একাউন্টিং মজবুত থাকাটা ভীষণ জরুরি । আপনি নিজেও এই হিসাবের কাজ করতে পারেন বা হিসাবপত্র দেখাশোনার জন্য একটি হিসাবরক্ষক বা Accountant কে নিয়োগ করতে পারেন ।

 

১০. নিজের ব্যবসার জন্য একটি টীম তৈরী করুন

আপনার ব্যবসায় যদি আপনি নিজেই সব কাজ করে নিতে পারেন , তাহলে কোনো টীম এর প্রয়োজন হবে না , কিন্তু আপনি যদি নিজের ব্যবসাকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে চান এবং তার সাথে নিজের জীবনকে উপভোগ করতে চান পরিবার এবং বন্ধু  দের সাথে তাহলে আপনাকে অবশ্যই একটি টীম তৈরী করতে হবে । আসলে যে কোনো ব্যবসাতে একটা সময়ের পরে টীম বানানো উচিত , কারণ আপনার ব্যবসা বড়ো হলে আপনার কাজের পরিমান ও বাড়বে তখন এক কাজ করা সম্ভব নয় ।

 

১১. নিজের ব্যবসাকে প্রোমোট করুন 

আপনি নতুন ব্যবসা শুরু করার পরে আপনাকে কেউ জানবে বা চিনবে না , কারণ আপনার ব্যবসা বা আপনার প্রোডাক্ট সম্বন্ধে কেউ জানেনা । তাই আপনার প্রোডাক্ট ও তার সাথে আপনার ব্যবসাকে প্রোমোট করা অত্যন্ত জরুরি , এতে আপনার ব্যবসা অনেক কম সময়ে অনেক বড়ো হবে ।

 

  » প্যাসিভ ইনকাম কী ? 10 টি সেরা প্যাসিভ ইনকাম

 

১২. নিজের উপর বিশ্বাস রাখুন

এই ১১ টি স্টেপ ফলো করে আপনি আপনার ব্যবসা তো তৈরী করলেন কিন্তু সব থেকে বড়ো জিনিস যেটা সেটা হলো নিজের উপর বিশ্বাস রাখা । পৃথিবীতে যত ধরণের কাজ রয়েছে বা ব্যবসা রয়েছে সব কিছুতেই কিন্তু এটাই আসল , নিজের উপর বিশ্বাস ভরসা রাখা । আপনার শুধু নয় সকলের ব্যবসায় উঁচু এবং নিচু হয়ে থাকে সেই সময় যদি নিজের উপর আপনার বিশ্বাস ও ভরসা থাকে তাহলে আপনার ব্যবসার উন্নতি কেউ আটকাতে পারবেনা । তাই নিজের উপর ভরসা ও বিশ্বাস রাখুন ।

একনজরে  :আজকে আমরা এই পোস্ট থেকে কি কি জানলাম

প্রথমে  জানালাম কিভাবে ব্যবসা শুরু করব ?

তারপর জানালাম  আমরা  কিভাবে ব্যবসা শুরু করব সহজ ১২ টি স্টেপে

তারপর সেই ১২ টি সহজ স্টেপ সম্বন্ধে বিস্তারিত জানলাম

আমাদের মধ্যে যাদের মনে এতো দিন প্রশ্ন ছিল যে কিভাবে ব্যবসা শুরু করব , আশা করি তারা আজকের এই পোস্ট থেকে বেশ কিছুটা সাহায্য পেয়েছে । এছাড়া ব্যবসা শুরু করা নিয়ে যদি কিছু জিজ্ঞাসা থাকে তাহলে আমাদের অতি অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন ।

ধন্যবাদ 

বঙ্গজ্ঞান টীম  

শেয়ার করুন:

নমস্কার , বঙ্গজ্ঞান ওয়েবসাইটে আপনাদের স্বাগত , আপনাদের বিভিন্ন বিষয়ে যেমন ব্যবসা , ক্যারিয়ার , কম্পিউটার জ্ঞান , ইন্টারনেট ইত্যাদির উপর আমরা তথ্য নিয়ে আসি প্রতি সপ্তাহে সোমবার দুপুর ০২.৩০ মিনিটে। আমাদের উদ্দেশ্য আপনাদের সবার কাছে বাংলা ভাষায় সঠিক তথ্য পৌঁছে দেওয়া।

2 thoughts on “কিভাবে ব্যবসা শুরু করব সহজ ১২ টি উপায়ে”

  1. সত্যি খুব সুন্দর ভাবে বুঝিয়েছেন স্যার। খুব সুন্দর পোস্ট

    Reply

Leave a Comment